সল্টলেক কাঁপানো সাদ উদ্দিনের এবার ভারতকে হারানোর প্রত্যাশা

গত বছর ১৫ অক্টোবর কলকাতার সল্টলেক স্টেডিয়ামের প্রায় ৫৪ হাজার স্থানীয় দর্শকের সামনে ভারতের বিপক্ষে যে ম্যাচটি খেলেছিল বাংলাদেশ, তা দীর্ঘদিন মনে থাকবে ফুটবলপ্রেমীদের।

ফুটবলে ভারত এখন বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে গেলেও বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ওই ম্যাচে মোড়লগিরি ছিল বাংলাদেশের ফুটবলারদেরই। ভারতের মাটিতে ভারতকে হারানোর তৃপ্তিটা শেষ পর্যন্ত আর হয়নি। তবে বাংলাদেশের কাছে হার এড়াতে সেদিন সুনীল ছেত্রিদের নাভিশ্বাস উঠেছিল।

৪৪ মিনিটে সাদ উদ্দিনের গোল স্তব্ধ করে দিয়েছিল কলকাতার সল্টলেকের ভরা গ্যালারি। ম্যাচের ২ মিনিট বাকি থাকতে ভারত গোল করে সমতায় আসার পর স্টেডিয়ামে যে উল্লাস হয়েছিল, সেটা যেন ছিল কলকাতাবাসীর বিশ্বজয়ের আনন্দ।

সেটি ছিল বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ে দুই দলের প্রথম ম্যাচ। ফিরতি ম্যাচটি হবে আগামী ১২ নভেম্বর। এবার নিজেদের মাঠে ভারতের বিপক্ষে খেলবেন জামাল ভূঁইয়া-সাদ উদ্দিনরা।

ভারতের মাটিতে ভারতকে প্রায় হারিয়ে দিতে যাওয়া বাংলাদেশের ফুটবলাররা চাইবে ঘরের মাঠে পূর্ণ ৩ পয়েন্ট রেখে দিতে। অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া আগেই বলেছেন, ‘ঘরের মাঠে আফগানিস্তান ও ভারতের বিরুদ্ধে জিততে চাই।’

ভারতের বিপক্ষে ফিরতি ম্যাচ নিয়ে কি ভাবছেন ১৫ অক্টোবর গোল করে সল্টলেক কাঁপিয়ে দেয়া সাদ উদ্দিন? তিনি আশা করছেন, নিজেদের মাঠে তারা বাড়তি সুবিধা পাবেন।

‘সেই ম্যাচে দুই দলই খুব ভালো স্কোয়াড নিয়ে নেমেছিল। আমাদের বর্তমান স্কোয়াডও অনেক ভালো। আশা করি, যদি নিজেদের পারফরমেন্স ধরে রাখতে পারি, ভারতের সাথে জয়ের সম্ভাবনা আছে। তবে ম্যাচটি অবশ্যই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে।’

নিজেদের মাঠ মানে চেনা পরিবেশ, গ্যালারিভরা সমর্থক। এটা ফুটবলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে সাদ উদ্দিন বলেছেন, ‘নিজেদের মাঠে খেলা সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ। ভারতের বিপক্ষে খেলাটা নিঃসন্দেহে বাড়তি উত্তেজনা বহন করে। আমরা অবশ্যই শতভাগ প্রস্তুতি নিয়ে জয়ের জন্যই মাঠে নামবো।’

আপনার গোলে ওই ম্যাচে বাংলাদেশ জয়ের কাছাকাছি চলে গিয়েছিল। ফিরতি ম্যাচেও নিশ্চয়ই গোল করতে চাইবেন? ‘অবশ্যই, গত ম্যচের মতো গোল করে দলকে এগিয়ে দিতে চাইবো এবং ম্যাচের পূর্ণ তিন পয়েন্ট অর্জনই আমাদের লক্ষ্য’-বলেন সাদ উদ্দিন।