এত প্রস্তুতির পরেও হতাশ করলেন আশরাফুল

asraful

‘আমার স্বপ্ন কিন্তু একটাই, আবার বাংলাদেশের হয়ে খেলব। আমি বিশ্বাস করি যে, অন্তত একদিন হলেও খেলব বাংলাদেশ দলে, আমার বিশ্বাস আমি দেশকে অন্তত আরও ২-৩ বছর সার্ভিস দিতে পারব’- বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ শুরুর আগে এক সাক্ষাৎকারে এভাবেই নিজের স্বপ্নের কথা বলছিলেন দেশের ক্রিকেটের একসময়কার মহাতারকা মোহাম্মদ আশরাফুল।

এ স্বপ্নপূরণের জন্য নিজের করা পরিশ্রমের কথা জানাতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘প্রস্তুতি নিতে আমি প্রতিদিন… আমার বাসা বনশ্রী, সেখান থেকে ধানমন্ডি গিয়ে দৈনিক ৩-৪ ঘণ্টা জিম করেছি। ফিটনেসেও অনেক উন্নতি হয়েছে। এখন নিজেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার জন্য প্রস্তুত মনে করি আমি।’

ফিটনেসের যে উন্নতি হয়েছে তার প্রমাণ মিলেছে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে করা বাধ্যতামূলক বিপ টেস্টে। যেখানে ১১.৪ পয়েন্ট পেয়েছিলেন আশরাফুল। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের বেঁধে দেয়া মানদণ্ডের (১১) চেয়ে বেশি পাওয়ায় বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ খেলার অনুমতি পান তিনি। পরে প্লেয়ার্স ড্রাফটে সুযোগ পেয়ে যান মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী দলে।

নিষেধাজ্ঞামুক্ত হওয়ার পর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ, ন্যাশনাল ক্রিকেট লিগ কিংবা বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ খেললেও, সেখানে নিজেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার জন্য প্রস্তুত বলেননি। তবে এবারের বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ শুরুর আগে সে কথাই বলেছিলেন আশরাফুল, বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক মঞ্চে ফেরার প্রস্তুতির কথা।

কিন্তু মাঠে খেলতে নেমে প্রথম ম্যাচে সেই প্রস্তুতির ছাপ খুব অল্পই রাখতে পেরেছেন আশরাফুল। উদ্বোধনী ম্যাচেই আশরাফুলের রাজশাহী মাঠে নেমেছে শক্তিশালী বেক্সিমকো ঢাকার বিপক্ষে। যেখানে ব্যাট হাতে রান পাননি আশরাফুল, আউট হয়েছেন ৯ বলে ৫ রান করে। ব্যাটিংয়ের সময় তার মধ্যে কোনও অস্বস্তি দেখা না গেলেও, বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি।

রাজশাহীর ইনিংসের সপ্তম ওভারে উইকেটে এসেছিলেন আশরাফুল। তখন দলের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৪৮ রান। অপরপ্রান্তে ১৪ বলে ২৪ রান নিয়ে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য ব্যাটিং করছিলেন ডানহাতি ওপেনার আনিসুল ইসলাম ইমন। ফলে আশরাফুলের ওপর খুব বেশি চাপ ছিল না। তার ব্যাটিংয়ে চাপের কোনও ছাপও ছিল না। নিজের মতো সময় নিয়েই খেলতে শুরু করেন আশরাফুল।

মুক্তার আলির করা মুখোমুখি প্রথম বল ডট দিলেও, দ্বিতীয় বলেই রানের খাতা খুলেন আশরাফুল। বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদের ওভারে সাবলীলভাবেই খেলেন সিঙ্গেল নিয়ে। কিন্তু সর্বনাশ হয় মুক্তার আলির করা নবম ওভারের শেষ বলে। অফস্টাম্পের বাইরে বল পেয়ে স্কয়ার কাট করেছিলেন আশরাফুল। মনে হচ্ছিল সীমানাছাড়া হবে সহজেই।

মাঝপথে বাঁধা হয়ে দাঁড়ান নাইম শেখ। পয়েন্ট অঞ্চলে দাঁড়িয়ে ডানদিকে ঝাপিয়ে বাজপাখির ক্ষিপ্রতায় বলটি লুফে নেন নাঈম। দৃষ্টিনন্দন শট খেলা আশরাফুলের ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে নাঈমের আরও সুন্দর এই ক্যাচের মাধ্যমেই।

আউট হওয়ার আগে আশরাফুল করেন ৯ বলে ৫ রান। যা চাপে ফেলে দেয় রাজশাহীকে। তবে শেখ মেহেদী হাসানের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বেক্সিমকো ঢাকাকে ২ রানে হারিয়েছে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী।