কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই টিকা রপ্তানি করবে ভারত

corona virus test kit

ভারতে তৈরি কোভিড ১৯-এর টিকা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে রপ্তানি করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। মঙ্গলবার রাতে বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেন, ভারত কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই করোনার টিকা রপ্তানি করবে। আগের স্থানীয় চাহিদা মেটানোর জন্য ভারত টিকা রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে বলে যে খবর আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এসেছে, তাও নাকচ করেছেন ওই কর্মকর্তা।

বাংলাদেশসহ প্রতিবেশী দেশগুলোকে করোনার টিকা দেয়ার সরকারি সিদ্ধান্ত অটুট আছে জানিয়ে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেই কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেন, প্রতিবেশী দেশগুলোকে টিকা দেয়ার যে প্রতিশ্রুতি তাদের সরকার দিয়ে আসছিল, তা এখনও অটুট রয়েছে।

‘আমাদের দেশে টিকা দেয়া শুরু হলেই ১৫ দিনের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ায় আমাদের প্রতিবেশী কয়েকটি দেশে রপ্তানির অনুমতি দেয়া হবে। এর মধ্যে কিছু টিকা আমরা উপহার হিসেবে দেব। বাকি টিকা রপ্তানি করা হবে আমাদের সরকার যে দামে টিকা কিনবে, মোটামুটি সেই দামেই।’

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা মিলে করোনাভাইরাসের যে টিকা তৈরি করেছে, তার উৎপাদন ও বিপণনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে সেরাম ইন্সটিটিউট অব ইন্ডিয়া।

সেরাম ইন্সটিটিউটে উৎপাদিত টিকার সঙ্গে ভারত বায়োটেকের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকাও জরুরিভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য ভারতের ওষুধ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন পেয়েছে।

এ মাসের মাঝামাঝি নাগাদ নাগরিকদের টিকা দেয়া শুরু করা যাবে বলে ভারতীয় কর্মকর্তারা আশা করছেন।

আগামী জুলাই মাসের মধ্যে ৩০ কোটি মানুষকে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ ভূষণ মঙ্গলবার দিল্লিতে সাংবাদিকদের বলেন, অনুমোদন পাওয়ার দিন (৩ জানুয়ারি) থেকে ১০ দিনের মধ্যে টিকা দেয়া শুরু করার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছেন তারা।

ভারত থেকে টিকা আমদানি করছে বাংলাদেশসহ কয়েকটি দেশ। সেরাম ইন্সটিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ডের টিকার তিন কোটি ডোজ কিনতে গত নভেম্বরই চুক্তি করেছে বাংলাদেশ সরকার। সেই চুক্তি মোকাবেক ৬০০ কোটির বেশি টাকা দিয়েছে বাংলাদেশ।

কিন্তু সেরাম ইন্সটিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদর পুনাওয়ালার বরাত দিয়ে রোববার রাতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ভারতীয়দের টিকা দেয়ার পর তা রপ্তানি করা হবে। এই খবরে বাংলাদেশের টিকা প্রাপ্তি নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। পরে মঙ্গলবার সেরামপ্রধান এক বিবৃতিতে জানান, তার বক্তব্য ভুলভাবে ছাপা হয়েছে। টিকা রপ্তানিতে বাধা নেই।