যেসব দেশে কর্তৃত্ববাদী শাসন চলছে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

jo biden

গণতন্ত্রের মূল ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে পরিচালিত হবে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি। বিশ্বের যেসব দেশে কর্তৃত্ববাদী শাসন চলছে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্পের পররাষ্ট্রনীতি ছেটে ফেলে মার্কিন পররাষ্ট্রনীতিতে নতুন অধ্যায় ঘটতে যাচ্ছে। অর্থাৎ, ‘আমেরিকা ইজ ব্যাক’-আবার পুরান নীতিতে ফিরে এসেছে ওয়াশিংটন।

বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদ্দেশে দেওয়া ২০ মিনিটের বক্তব্যে এসব ইঙ্গিত দেন নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। খবর সিএনএন।

ওয়াশিংটনে এদিন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ডিপার্টমেন্ট অব স্টেট সফর করেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। এ সময় তাদের সঙ্গে ছেলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ্যান্থনি ব্লিনকিন।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ইয়েমেন যুদ্ধকে একটি মানবিক বিপর্যয় আখ্যা দিয়ে নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ইয়েমেন যুদ্ধে আক্রমণাত্মক সব সমর্থন বন্ধ করবে। তার প্রশাসন এ ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি দ্বন্দ্ব ও চলমান বিরোধ নিরসনে একজন কূটনৈতিককে নিয়োগ দেবেন। জার্মানিতে মার্কিন সেনাদের পুনঃমোতায়েন বন্ধ করা হবে বলেও জানান তিনি।

বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তার ঐতিহ্যগত মিত্রদের গুরুত্ব দেওয়াসহ গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, মানবাধিকার ও বিদেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও মর্যাদাকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করবে। প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব মঞ্চে ফের ফিরে এসেছে এবং বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। তিনি বলেন, আমাদের সামনে রয়েছে বিশাল সব চ্যালেঞ্জ। বৈশ্বিক সর্বজনীন অধিকার প্রতিষ্ঠা ও আইনের শাসনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন হবে আমাদের শক্তির ভিত্তি। যদিও এই মূল্যবোধের অনেক বিষয় সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চাপের মুখে রয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তার জোট পুনর্গঠন করতে মনোযোগী হবে। জোট হচ্ছে আমাদের বড় সম্পদের মধ্যে একটি। কূটনীতিতে নেতৃত্বে দেওয়া মানে জোট ও অংশীদারদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে।