জিয়া জাদুঘরের স্বাধীনতা ঘোষণার ট্রান্সমিটার সরানো হবে

information

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ড. মো. মুরাদ হাসান বলেছেন, আমি আশা করি চট্রগ্রাম জিয়া স্মৃতি জাদুঘর থেকে অবিলম্বে আমাদের মহান স্বাধীনতার ঘোষণা প্রদানে ব্যবহৃত ঐতিহাসিক ট্রান্সমিটার চট্রগ্রামের কালুরঘাট বেতারকেন্দ্রে স্থানান্তর করা হবে।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিকেলে তিনি চট্রগ্রাম সার্কিট হাউজে আঞ্চলিক তথ্য অফিস, জেলা তথ্য অফিস এবং বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১-এর ২৫ মার্চ কালোরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর নির্বিচারে গণহত্যা শুরু করলে ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করেন যা এ ট্রান্সমিটারের মাধ্যমে সর্বপ্রথম প্রচারিত হয়।

পরবর্তীতে শেখ মুজিবুর রহমানের নামে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছিলেন চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ হান্নান। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে ঐতিহাসিক এ ট্রান্সমিটার চট্রগ্রামের কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে জিয়া স্মৃতি জাদুঘরে স্থানান্তর করা হয়।

ড. মুরাদ হাসান বলেন, এ ট্রান্সমিটার আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক অংশ। বাংলাদেশের ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য দলিল। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এ ট্রান্সমিটারের মাধ্যমেই স্বাধীনবাংলা বেতারকেন্দ্র পরিচালিত হয়েছিল।

ঐতিহাসিক ট্রান্সমিটারটি বর্তমানে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন। জিয়া স্মৃতি জাদুঘর থেকে ট্রান্সমিটারটি চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রে স্থানান্তরের বিষয়টি আন্তঃমন্ত্রণালয় আলোচনার মাধ্যমে সরানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।