ডিসেম্বরের শুরুতেই ভারত সফরে আসছেন পুতিন

putin

আগামী ডিসেম্বরে শুরুর দিকে ভারত সফরে আসছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। একই সময়ে দেশটিতে পৌঁছে যাচ্ছে রাশিয়ার তৈরি অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা এস-৪০০।

সীমান্ত নিয়ে চীনের সঙ্গে চলমান সংকটের মধ্যে এই অস্ত্র ভারতকে অনেকটা স্বস্তি এনে দেবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ার আশঙ্কা থাকলেও ওয়াশিংটনের মান ভাঙাতে নানামুখী চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে নয়াদিল্লি।

আগামী মাসে ভারতের হাতে আসছে কাঙ্ক্ষিত রাশিয়ার তৈরি অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৪০০। প্রতিবেশী দেশ চীনের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে এই অস্ত্র ভারতকে কৌশলগতভাবে শক্তিশালী করবে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কেনায় নাখোশ যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার হুমকির মুখে এর আগে নানা উদ্যোগ থেকে পিছু হটছে ভারতকে। তবে এস-৪০০ ইস্যুতে অনড় অবস্থানে মোদি সরকার। যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার শঙ্কার মুখে পড়েও এস-৪০০ নিয়ে সামনে এগিয়েছে ভারত।

২০১৮ সালে একটি আইন পাস করে যুক্তরাষ্ট্র। ওই আইনে বলা হয়, রাশিয়া, ইরান অথবা উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে প্রতিরক্ষা বা গোয়েন্দাসংক্রান্ত চুক্তি করলে সংশ্লিষ্ট রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করবে যুক্তরাষ্ট্র।

বিশ্লেষকরা বলছেন, সব হিসাব-নিকাশ শেষে ভারতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি হলে তা যুক্তরাষ্ট্রের জন্যই বিপদ ডেকে আনবে। কারণ, এর জের ধরে রাশিয়ার সঙ্গে শক্ত সামরিক সম্পর্কের দিকে এগোতে পারে ভারত। এ ছাড়া চীনকে টেক্কা দিতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগও গতি হারাতে পারে।

তবে ভারতকে ছাড় দিলে অন্য দেশগুলোও রাশিয়ার সঙ্গে অস্ত্র চুক্তিতে আগ্রহী হয়ে উঠতে পারে। চাপ আসবে তুরস্কের দিক থেকেও। কারণ, পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য এই দেশটি এস-৪০০ কিনে মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় রয়েছে।

এ ছাড়া নিষেধাজ্ঞায় ছাড়ের আশায় রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তিতে যেতে পারে মার্কিন মিত্র সৌদি আরবও। এস-৪০০ কিনতে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছিল সৌদি সরকার। পরে দেশটিকে মার্কিন আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ‘টিএইচএএডি’ কিনতে প্রস্তাব দেয় যুক্তরাষ্ট্র।