খালেদার চিকিৎসার পথে বাঁধা শেখ হাসিনা: গয়েশ্বর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করা যাচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। হুঁশিয়ার করে বলেছেন, শেখ হাসিনার পতন অবধারিত, শুধু সময়ের ব্যাপার।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বৃহস্পতিবার বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসার সুযোগের দাবিতে সমাবেশে এসব কথা বলেন গয়েশ্বর।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা কখনও খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেবে না। চিকিৎসা করাতে দেবে না। বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সংবাদ পাওয়ার আগ পর্যন্ত অস্থিরভাবে আগ্রহ করছেন।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার পথে বাঁধা শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনাকে আগে সরতে হবে, তাহলে খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন। তাহলে খালেদা জিয়া পছন্দমত চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে পারবেন।

বাংলাদেশের সবাই খালেদার মুক্তি চায় জানিয়ে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, এমনকি আওয়ামী লীগের শতকরা ৯০ জন লোক শেখ হাসিনার এই বাড়াবাড়িকে পছন্দ করছে না।

কারাগারে থাকা অবস্থায় বিএনপি চেয়ারপারসকে স্লো পয়জনিং করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন গয়েশ্বর। তিনি বলেন, আমরা যখন কারাগারে যায় তখন কারাগার কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে কানে কানে বলতেন, আমরা যত ভাল খাবারই দেয় সেটা খাবেন না। জেলখানায় স্লো পয়জনিংয়ের বিষয়টা ব্রিটিশ আমল থেকেই আছে।

আওয়ামী লীগের পালানোর জায়গা নেই জানিয়ে গয়েশ্বর আরও বলেন, কয়েক দিন আগে মুরাদ নামের একজন কানাডায় গিয়েছিলেন। বিভিন্ন এয়ারপোর্ট ঘুরে ফেরত এসেছে, কেউ জায়গা দেয়নি। শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের সমস্ত নেতার এই অবস্থা হবে। কোথাও জায়গা হবে না। কোনো জায়গায় ঠাঁই পাবে না।

সেই কারণে শেখ হাসিনাকে বলব, জায়গা যখন বিদেশে পাবেন না, পালানোর চেষ্টা করা তো দরকার নাই। দেশেই যদি থাকতে চান তাহলে খালেদা জিয়ার কাছে ক্ষমা চান।

দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চান। দেশের মানুষের অধিকার ফেরত দেন। জনগণের সাথে একটু সমঝোতা করেন।ঢাকা জেলা বিএনপির আয়োজনে এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন বাবু।