কুষ্টিয়ায় করোনা সন্দেহে প্রবাসীর শিশু পুত্র আইসোলেশনে

kushtia map

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি এক শিশুকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সন্দেহে আইসোলেশন ওয়ার্ডে নেওয়া হয়েছে। ওই শিশুর বয়স মাত্র ৭ মাস। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা তাপস কুমার সরকার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তাপস কুমার বলেন, ২৩ মার্চ শিশুটিকে হাসপাতালে আসেন পরিবারের সদস্যরা। ওই সময় তার জ্বর, ঠান্ডা, কাশি ছিল। ওই দিনই পরিবারের সদস্যরা জানান, তাঁদের কেউ বিদেশে থেকে আসেননি বা প্রবাসী কারও সংস্পর্শে কেউ যাননি। ওই শিশুটিকে শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা আজ বৃহস্পতিবার অবনতির দিকে যায়। তাকে নিউমোনিয়ার চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। বিষয়টি আইইডিসিআরকে জানানো হয়েছে। তারা নমুনা সংগ্রহ করবে।

সকালে চিকিৎসকেরা ওই পরিবারের সদস্যদের আরও জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এ সময় ওই পরিবারের এক আত্মীয় জানান, শিশুটির বাবা ৯ মার্চ সিঙ্গাপুর থেকে দেশে আসেন। তিনি পরিবারের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে ছিলেন। এ তথ্য জানার পর শিশুটিকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়। তবে তার বাবাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। পরিবারটি কুষ্টিয়া শহরেই বাস করে।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন বলেন, ওই পরিবারের সব সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। প্রয়োজনে বাড়িটিকেও লকডাউন করা হবে। সেখানে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেনসহ পুলিশ পাঠানো হয়েছে।