অক্সফোর্ডের টিকায় অংশগ্রহণকারী অসুস্থ, ট্রায়াল স্থগিত

oxford

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশটির ওষুধ কোম্পানি আস্ট্রাজেনেকার তৈরি করা করোনাভাইরাসের টিকার চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষায় যুক্তরাজ্যে একজন অংশগ্রহণকারী অসুস্থ হওয়ায় ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল স্থগিত রাখা হয়েছে।

বুধবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

আস্ট্রাজেনেকা বলেছে, ট্রায়ালে কারও অসুস্থতার কারণ যখন ব্যাখ্যা করা যায় না, তখন পরীক্ষায় এ ধরনের ‘বিরতি’ স্বাভাবিক ঘটনা।

আন্তর্জাতিক এ সংবাদ মাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রায়ালে একজন স্বেচ্ছাসেবী অসুস্থ হয়ে পড়ার পর এই কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত করা হলেও ওই ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। তার অসুস্থতার ধরন সম্পর্কেও বিস্তারিত কোনো তথ্য জানা যায়নি। তবে তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ বলছে, ওই ব্যক্তির অসুস্থতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার আগ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে ভ্যাকসিনটির ট্রায়াল বন্ধ থাকবে। তবে আশা করা হচ্ছে, ওই ব্যক্তি দ্রুতই সুস্থ হয়ে উঠবেন

আস্ট্রাজেনেকা-অক্সফোর্ডের টিকার প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর বাজারে আসা প্রথম টিকাগুলোর মধ্যে এটি একটি হবে বলে উচ্চ ধারণা পোষণ করা হচ্ছে।

কয়েক সপ্তাহ ধরে এর তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এতে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল ও দক্ষিণ আফ্রিকার প্রায় ৩০ হাজার অংশগ্রহণকারী যুক্ত আছেন। এই পর্যায়ের পরীক্ষায় প্রায়ই কয়েক হাজার অংশগ্রহণকারী যুক্ত থাকেন এবং তা কয়েক বছর ধরে চলতে পারে।

বিবিসির চিকিৎসা বিষয়ক সম্পাদক ফারগাস ওয়ালশ জানিয়েছেন, এ টিকার ট্রায়াল বিশ্বের যেখানে যেখানে চলছিল সবগুলোই স্থগিত করা হয়েছে। একটি স্বাধীন তদন্তের মাধ্যমে নিরাপত্তা দিকটি যাচাই করার পর ট্রায়াল আবার শুরু করতে পারবে কি না নিয়ন্ত্রক সংস্থা সে সিদ্ধান্ত নেবে।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একজন মুখপাত্র বলেন, বড় ধরনের ট্রায়ালে এমন ঘটনা ঘটতে পারে। কেউ কেউ এমনিতেই অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। সেক্ষেত্রে তাদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। অসুস্থ হওয়ার পেছনে ভ্যাকসিনের কোনো ভূমিকা রয়েছে কিনা সেটি জানার চেষ্টা করেন গবেষকরা।