ঝিনাইদহে পোশাকের দোকানে উপচে পড়া ভীড়, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

Jhenidah market Photo

১৪ এপ্রিল থেকে কঠোর লকডাউন ঘোষনার পর ঝিনাইদহে পোশাকের দোকানে উপচেপড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। যেখানে মান হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। মাস্ক ছাড়া গাদাগাদি করে কেনা-বেচা করছে ক্রেতা-বিক্রেতারা।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই শহরের মুন্সী মার্কেট, গীতাঞ্জলী সড়কসহ বিভিন্ন বিপনী বিতান ঘুরে দেখা গেছে পোশাকের দোকানে ভীড় করছে নানা শ্রেণী পেশার মানুষ। মাস্ক ছাড়াই অভিভাবকদের সঙ্গে শপিংমলে ঘুরছে শিশুরা। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পোশাক কিনতে আসছে মধ্যবিত্ত, নিন্মবিত্তরা।

শহরের হামদহ থেকে আসা এক নারী বলেন, কালকের দিন পরে তো আবার বন্দ করে দেবে। তাই বাচ্চাগের কাপুড় কিনতে আইচি। লকডাউন চলছে তো কি করব কন। কিনা তো লাগবি। আমার কবে খুলবি তাই আগেই কিনে নিয়ে যাচ্চি।

আরাপপুর থেকে আসা আরএক নারী বলেন, ছেলে আর মেয়ের কাপুড় কিনব বলে আইচি। ২ ডো কিনিচি আরও ২ ডো কেনব। দুকানে অনেক ভীড়। ফাঁকে ফাকে গিয়ে কিনছি। করোনার ভয় আচে তারপরও কিনতি আসলাম। বাচ্চাদের দিকে তো তাকাতি হবি।

এদিকে পোশাক ছাড়াও অন্যান্য ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানেও বেড়েছে ভীড়। শহরের ভীড়ের কারণে সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। এতে বাড়বে করোনার ঝুকি।

ঝিনাইদহের সিভিল সার্জন ডা: সেলিনা বেগম বলেন, আজও ঝিনাইদহে নতুন করে ২৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গতকাল (সোমবার) একজন মারা গেছে। করোনার এই পরিস্থিতিতে মানুষ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান, দোকান-পাটে ভীড় করছে। এতে করোনার সংক্রমনের ঝুঁকি বেড়েই চলেছে।

এ ব্যাপারে ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান বলেন, মানুষের বাইরে আসা, স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে ও মানুষকে সচেতন করতে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছে।