তাপস পালের মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার শোক

momota tapos pal

ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল (৬১) মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মঙ্গলবার ভোরে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তাপস পালের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীমহল। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক টুইটবার্তায় মমতা উল্লেখ করেন, তাপস পালের মৃত্যুতে তিনি শোকাহত। বাংলা সিনেমার একজন উজ্জ্বল নক্ষত্র তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সাবেক এমপি ও বিধায়কের মৃত্যুতে তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান মুখ্যমন্ত্রী।

পাশাপাশি প্রয়াত অভিনেতার স্ত্রী নন্দিনী পাল ও মেয়ে সোহিনী পালকেও সমবেদনা জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১৯৫৮ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর হুগলির চন্দননগরে জন্ম নেন তাপস পাল। ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি তার আগ্রহ ছিল।

কলেজে পড়ার সময় নজরে পড়েন পরিচালক তরুণ মজুমদারের। মাত্র ২২ বছর বয়সে মুক্তি পায় তাপস পাল অভিনীত প্রথম ছবি ‘দাদার কীর্তি’।

এর পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক হিট, সুপারহিট ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। তাপস পাল অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে ‘সাহেব’, ‘গুরুদক্ষিণা’ ‘অনুরাগের ছোঁয়া’, ‘পারাবত প্রিয়া’, ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’ অন্যতম।

তাপস পাল ‘সাহেব’ চলচ্চিত্রের জন্য ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পান ১৯৮১ সালে। বাংলার পাশাপাশি তাপস পাল অভিনয় করেছেন বেশ কিছু হিন্দি ছবিতেও। বলিউডের তৎকালীন জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিতের বিপরীতে অভিনয় করেছেন ‘অবোধ’ ছবিতে।

চলচ্চিত্রে দাপুটে পদচারণার পর যোগ দেন রাজনীতিতে। পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণনগর আসন থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভার এমপি ছিলেন তাপস পাল।