যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নতুন কিছু সম্পর্ক হওয়ার সম্ভাবনা দেখছে বাংলাদেশ

momen sahariar

ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের কোনো পরিবর্তন হবে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন ও প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তারা মনে করেন, দুই দেশের মধ্যে আরও নতুন কিছু বিষয়ে সম্পর্ক তৈরি হবে।

রোববার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে পৃথক আলাপকালে তারা এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যেই ক্ষমতায় থাক, তাতে বাংলাদেশের জন্য কোনো অসুবিধা নেই। হোয়াইট হাউসে যিনিই আসেন, আমাদের কোনো অসুবিধা নেই। কারণ ব্যক্তি বিশেষের ওপর (আমেরিকার) পররাষ্ট্রনীতি নির্ভর করে না।

তিনি বলেন, অর্থনীতির দিক থেকে আমরা ভালো করছি। ভূরাজনৈতিকভাবে খুব ভালো অবস্থানে আছি। কারও সঙ্গে শত্রুতা নেই। সবাই আমাদের বন্ধু। অপর এক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, ভালো-মন্দ সবকিছুতে আছে। বাইডেন সাহেব জলবায়ু নিয়ে সোচ্চার, অভিবাসী সম্পর্কেও সোচ্চার। সুতরাং প্লাস-মাইনাস আছে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের কোনো পরিবর্তন হবে না। আমি মনে করি, আরও কিছু কমন গ্রাউন্ডে আরও গভীরভাবে কাজ করার সুযোগ হবে। ভৌগলিক অবস্থানকে ব্যবহার করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেয়াই শেখ হাসিনার পররাষ্ট্রনীতি।

আমেরিকায় অবস্থানরত বঙ্গবন্ধুর খুনি ফিরিয়ে আনার বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনির ফেরানোর বিষয় অনেকটা নিউট্রাল ইস্যু। আইনের মাধ্যমে ঠিক হবে। সুতরাং এগুলোতে আমাদের কোনো ব্যাঘাত হবে না। ঝামেলা হবে না।

এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কোনো খুনিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো গণতান্ত্রিক দেশ আশ্রয়-প্রশ্রয় দেবে না- এই দাবি অতীতে যেমন ছিল, সামনের দিনে আরও জোরালো হবে।

প্রসঙ্গত, ৪৬তম মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে শ্বাসরুদ্ধকর লড়াইয়ের পর জো বাইডেন বিজয়ী হয়েছেন। তিনি এরই মধ্যে ২৯০টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়ে ট্রাম্পকে হারান। পপুলার ভোটও বেশি পেয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন।