কোভিড-১৯: পৃথিবীর ইতিহাসের সবচেয়ে বড় টিকাদান কর্মসূচি

ফাইল ফটো

বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যেই চলছে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় টিকাদান কর্মসূচি। নিউইয়র্ক ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিশ্বের ৮৬টি দেশে ১৯৩ মিলিয়নেরও বেশি ডোজ করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।

বিশ্বজুড়ে ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনই অধিকাংশ দেশে অনুমোদন পেয়েছে। প্রত্যেকটি ভ্যাকসিনই কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ডোজ করে নিতে হবে।

অন্যদিকে, চীন ও রাশিয়া গত জুলাই ও আগস্টে তাদের নিজস্ব ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিয়েছে। দেশ দুটি কয়েক লাখ ডোজ সরবরাহের কথা জানালেও তাদের ভ্যাকসিন কর্মসূচি নিয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে সংগ্রহ করা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করা হয়েছে। গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাংলাদেশে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৮ লাখ ৪৮ হাজার ৩১৩ জন। দেশে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া এখনো শুরু হয়নি।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি নাগরিকদের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যে এখন পর্যন্ত প্রায় ছয় কোটি ডোজ দেওয়া হয়েছে। দেশটিতে চার কোটি ১৭ লাখ মানুষ ভ্যাকসিনের অন্তত একটি ডোজ পেয়েছেন। এ ছাড়াও, এক কোটি ৬৯ লাখ মানুষ ভ্যাকসিনের দুটি ডোজই নিয়েছেন।

বিশ্বজুড়ে ভ্যাকসিন নেওয়ার ক্ষেত্রে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে চীন। চীনে প্রায় চার কোটি পাঁচ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে দুই কোটি ৪২ লাখ ৯২ হাজার ৪৫৩ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।

ভারতে এখন পর্যন্ত ৯৮ লাখ ৪৬ হাজার ৫২৩ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। ইসরায়েলে দেওয়া হয়েছে ৭০ লাখ ৬৫ হাজার ১৯৫ ডোজ ভ্যাকসিন নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া, ব্রাজিলে ৬২ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৯ ডোজ, ইতালিতে ৩২ লাখ ৭৯ হাজার ১২৯ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।

জনসংখ্যা অনুপাতে বিশ্বে ভ্যাকসিন দেওয়ার দৌঁড়ে সবচেয়ে এগিয়ে আছে ইসরায়েল। দেশটিতে ইতোমধ্যেই প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৭৮ দশমিক ০৬ জনকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এরপরই আছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, দেশটিতে প্রতি ১০০ জনে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে ৪৯ দশমিক ৯৯ জনকে। তৃতীয় অবস্থানে থাকা যুক্তরাজ্যে প্রতি ১০০ জনে ভ্যাকসিন নিয়েছেন ২৫ দশমিক ৪৫ জন। যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি ১০০ জনে ভ্যাকসিন নিয়েছে ১৭ দশমিক ৮০ জন।

বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতি ১০০ জনে ১ দশমিক ১১ জনকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। প্রতিবেশী দেশ ভারতে প্রতি ১০০ জনে ভ্যাকসিন নিয়েছেন ০ দশমিক ৭২ জন।

ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, বিশ্বব্যাপী গতকাল পর্যন্ত গড়ে প্রতিদিন ৬৪ লাখ ৬৯ হাজার ৮৩৩ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। এই হারে ভ্যাকসিন গ্রহণ চললে বিশ্বের ৭৫ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিনের দুটি ডোজই সরবরাহ করতে আনুমানিক ৪ দশমিক ৮ বছর সময় লাগবে।