মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী ‘ঐক্য সরকার’ গঠিত

myanmar - barma

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর ক্ষমতাচ্যুত সংসদ সদস্য, অভ্যুত্থানবিরোধী ও জাতিগত সংখ্যালঘু নেতাদের সমন্বয়ে গঠিত একটি দল নিজেদেরকে দেশটির ‘জাতীয় ঐক্য সরকার’ হিসেবে ঘোষণা করেছে।

আজ শুক্রবার রয়টার্স জানায়, ‘জাতীয় ঐক্য সরকার’ নামে মিয়ানমারের অন্তর্বর্তী সরকারের এক আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় সামরিক শাসনের মূলোৎপাটন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের ডাক দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার মিয়ানমারের প্রবীণ গণতন্ত্র কর্মী মিন কো নাইং ‘জাতীয় ঐক্য সরকার’ গঠনের ঘোষণা দিয়ে ১০ মিনিটের একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘দয়া করে জনগণের সরকারকে স্বাগত জানান।’

সামরিক সরকারের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা এটিকে শেকড় থেকে উপড়ে ফেলার চেষ্টা করছি। এজন্য আমাদের অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হবে।’

অন্তর্বর্তী সরকারের কয়েকটি পদ ঘোষণা করে মিন কো নাইং আরো জানান, জনগণের ইচ্ছাই ঐক্য সরকারের অগ্রাধিকার।

‘জাতীয় ঐক্য সরকার’ তাদের মন্ত্রীসভার একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। ওই তালিকায় গণতন্ত্রপন্থী আন্দোলন ও স্বায়ত্তশাসনকামী সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিবাদী নেতারা আছেন। সংখ্যালঘু নেতাদের কয়েকজন স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে কয়েক দশক ধরে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে লড়াই করছেন।

ঐক্য সরকারের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হলো আন্তর্জাতিক সমর্থন ও স্বীকৃতি অর্জন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে মিয়ানমারে সহিংসতা চলছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবিতে মানুষ প্রতিদিনই রাস্তায় নামছে। সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এখন পর্যন্ত সাতশ’র বেশি বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে।

রয়টার্স জানায়, ক্ষমতাচ্যুত নেতা অং সান সু চির দলের সদস্যসহ অন্যান্য রাজনৈতিক নেতারা দেশের মানুষ ও বিশ্বের কাছে ‘সেনাবাহিনী মিয়ানমারের বৈধ রাজনৈতিক কর্তৃত্ব নয়’ দাবি করে নিজেদের সংগঠিত করার চেষ্টা করছেন।

গত নভেম্বরের নির্বাচনে সু চির দল ভোট জালিয়াতির মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে দাবি করে সেনা অভ্যুত্থানকে বৈধতা দিয়েছে দেশটিতে ক্ষমতাসীন সেনাবাহিনী। তবে, নির্বাচন কমিশন এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে।