সন্ত্রাসবাদ আমাদের স্বাধীনতা খর্ব করতে ব্যর্থ হয়েছে: বরিস জনসন

Boris Johnson

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে হামলার পেছনের সন্ত্রাসীরা স্বাধীনতা এবং গণতন্ত্রে আমাদের বিশ্বাসকে খর্ব করে দিতে ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। আজ থেকে ২০ বছর আগের কথা। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর ছিনতাই করা চারটি যাত্রীবাহী বিমান দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার বা টুইন টাওয়ারে হামলা চালানো হয়েছিল।

সন্ত্রাসীদের হামলায় ধ্বংস হয়ে যায় টুইন টাওয়ার। আর সেই হামলার শিকার হয় মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন। সেই ঘটনায় প্রাণ গেছে দুই হাজার ৯৭৭ জনের। তাদের মধ্যে ৬৭ জন ব্রিটিশ নাগরিক ছিলেন।

টুইন টাওয়ারে হামলার দুই দশক উপলক্ষে বরিস জনসন বলেছেন, সন্ত্রাসের হুমকি থেকে গেলেও মানুষ স্থায়ীভাবে ভয়ের মধ্যে বসবাস করতে অস্বীকার করেছে।

তিনি আরো বলেছেন, সে কারণে আজ আমরা একত্রিত হচ্ছি দুঃখের দিনে- কিন্তু সেটা বিশ্বাস এবং সংকল্প নিয়ে; এটা সন্ত্রাসবাদের ব্যর্থতা প্রদর্শন করে।

টুইন টাওয়ারে হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে যোগ দেয় পশ্চিমা বিশ্ব। হামলার জন্য আল কায়েদাকে দায়ী করা হয়।

আল কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনের ঘাঁটি আফগানিস্তানে হামলাও চালায় ওয়াশিংটন। লাদেনের মিত্র তৎকালীন তালেবান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করাও হয়।

তারপর ২০ বছর ধরে আফগানিস্তানে থেকেছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী। সম্প্রতি তারা আফগানিস্তান ছেড়েছে। মার্কিন বাহিনী ফিরে যাওয়া শুরু করতেই আবারো আফগানিস্তান চলে গেছে তালেবানের হাতে।

জানা গেছে, ওই হামলার ২০তম বার্ষিকী আজ পালন করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। নিউ ইয়র্কে ওই ঘটনায় নিহতদের স্মরণে নির্মিত স্মৃতিসৌধও সাজানো হয়েছে।

হোয়াইট হাউস থেকে জানানো হয়েছে, ৯/১১ এ আক্রান্ত তিন স্থানের সবগুলো পরিদর্শনে যাবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সূত্র: বিবিসি, রয়টার্স।