বিদেশ পাঠানোর নামে টাকা আত্মসাৎ, যশোরে পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

jashore map

ইউরোপে লোক পাঠানোর নামে ২৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এক পুলিশ কন্সটেবলের নামে যশোর আদালতে মামলা হয়েছে। পুলিশ কন্সটেবল মোহাম্মদ জুয়েল বর্তমানে পুলিশ হেড কোয়াটার্স ঢাকার পুলিশ কন্ট্রোল রুমে কর্মরত রয়েছেন। যার পুলিশ আইডি নং ৮২০২০৮২৭১৯।

জুয়েল বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার চর উত্তর ভুতেরদিয়া গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে। মামলাটি করেছেন ঘোপ ডিআইজি রোডের বাসিন্দা রাকিবুল ইসলাম। তিনি নড়াইল জেলার নড়াগাতী উপজেলার যোগানিয়া গ্রামের পাচু মোল্যার ছেলে। বিদেশে লোক পাঠাতে ব্যর্থ হয়ে চেক দেন জুয়েল। পরে তা ডিজঅনার হয়। এরপর এ মামলা করে রাকিবুল। বিষয়টি আমলে নিয়ে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুদ্দীন হোসাইন সমন জারি করে আগামি ২ মে মামলার পরবর্তি দিন ধার্য করেন।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, কন্সটেবল জুয়েলের সাথে রাকিবুলের বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক। জুয়েল পুলিশে চাকরি করে ও নিজেকে ক্ষমতাধার পরিচয় দেন। তিনি জানায়, ইউরোপে তিনি লোক পাঠাতে পারবেন। এসময় রাকিবুল তার আপন ভাই মাহমুদ হাসান ও শ্যালক আল আমিনকে ইউরোপে পাঠাতে আগ্রহী হন। এরপর জুয়েল ২৫ লাখ টাকা দাবি করেন। একই সাথে দুই মাসের মধ্যে তাদেরকে বিদেশে পাঠানোর প্রতিশ্রতি দেন। ২০১৯ সালের পহেলা জানুয়ারী জুয়েল ২৫ লাখ টাকা নেন। কিন্তু তাদেরকে বিদেশ পাঠাতে ব্যর্থ হন। শেষমেষ ২০২০ সালের পহেলা ডিসেম্বর ওই টাকা ফেরত দেয়ার শর্তে ২০২০ সালের ২৮ জানুয়ারি ৩শ’ টাকার নন জুডিসিয়াল ষ্টাম্পে অঙ্গিকার করেন জুয়েল। একই সাথে ওই টাকার বিপরীতে একটি চেক প্রদান করেন জুয়েল। ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর তা ডিজঅনার হয়। পরে চলতি বছরের ৩ জানুয়ারী উকিল নোটিশ পাটালেও জুয়েল কর্নপাত করেন না। বাধ্য হয়ে বুধবার আদালতে মামলা করেন রাকিবুল।