যশোরের চাঁচড়া ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতা লেগেই আছে

up election ec

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যশোরের চাঁচড়া ইউনিয়নে সহিংস ঘটনা লেগেই আছে। একই সাথে চলছে নৌকা প্রার্থীর পক্ষে বিপক্ষে নানা অভিযোগ।

গত শনিবার রাতভর ওই ইউনিয়নের সহিংস ঘটনা ঘটেছে। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সেলিম রেজা পান্নু প্রতিদ্বন্ধী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের শামিম রেজার সমর্থক কর্তৃক হামলার শিকারের পর নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা ইউনিয়নের বহু গ্রামে আনারস প্রতীকের প্রার্থীর অফিস ভাংচুর,

পোস্টার ছিড়ে ফেলা, চেয়ার ভাংচুরসহ কর্মীদের নানা রকম হুমকি দিয়েছে। এই ঘটনায় দুই পক্ষের সমর্থকেরা রোববার সকাল প্রেসক্লাবে আসেন সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ দিতে।

কিন্তু পুলিশি বাঁধার মুখে উভয় পক্ষ সাংবাদ সম্মেলন করতে পারেনি। তবে শামীর রেজার পক্ষের কর্মীরা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে দাড়ানোর কিছুক্ষণ পর পুলিশি বাঁধার মুখে তারা সরে যেতে বাধ্য হন।

নৌকা প্রতীকের পক্ষে অবস্থান নেয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দাবিদার মশিয়ার রহমানের অভিযোগ, সেলিম রেজা পান্নু একজন সফল মৎস চাষি।

তিনি আওয়ামীলীগের লোক। কারোর নির্দেশ ছাড়াই তিনি নিজ উদ্যোগে স্থানীয় মানুষকে সাহায্য সহযাগিতা করে থাকেন। যে কারণে প্রধানমন্ত্রী তাকে নৌকা প্রতীক দিয়ে সম্মানিত করেন।

নির্বাচনের শুরুতে আওয়ামীলীগ নামধারী কিছু সুবিধাভোগী নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে। বিগত দিনের নির্বাচনে আব্দুল আজিজ নৌকার বিরোধী করেন।

তিনি কেন্দ্র দখল করে মানুষ হত্যা করে ভোট লুট করে চেয়ারম্যান হন। এবারও ওই ষড়যন্ত্রকারীরা এক হয়েছে। এবার আব্দুল আজিজের ছেলে শামিম রেজাকে নৌকার প্রতিদ্বন্ধী হিসাবে দাড় করিয়েছে।

সন্ত্রাস আর আতংক ছড়াচ্ছে ইউনিয়ন জুড়ে। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিপক্ষে মিথ্যাচার ও নানা প্রপাকান্ডা চালাচ্ছে। এই বিষয়ে সাধারণ মানুষ সোচ্চার আছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী শামিম রেজার অভিযোগ, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সন্ত্রাসীদের দিয়ে ভোটের প্রচারনা চালাচ্ছে। ভাতুড়িয়া বাজারে নৌকার মিছিল থেকে জিহাদ নামে এক কিশোরকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

প্রতিদিন ইউনিয়নের প্রত্যেক গ্রামে গিয়ে আনারস প্রতীকের অফিস ভাংচুর করছে। পোস্টার ছিড়ে আগুন ধরিয়ে দিচ্ছে। সাধারণ ভোটরদের হুমকি দিচ্ছে।

শনিবার রাতভর নৌকার সমর্থকরা তান্ডব চালিয়েছে। আনারস প্রতীকের ৩২টি অফিস ভাংচুর করেছে। আওয়ামী লীগের নেতার বাড়িতে গিয়ে হুমকি দিয়েছে।

অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে। পরাজয় বুঝতে পেরে এখন যেভাবে হোক জেতার জন্য মরিয়া হয়ে গেছে। মোজাম্মেল হোসেন নামে এক কর্মীর মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করেছে।

তিনি এখন হাসপাতালে ভর্তি। এভাবে প্রত্যেকদিন তান্ডব চালাচ্ছে নৌকার সমর্থকরা। এই অবস্থা পরিবর্তনের জন্য তিনি প্রশাসের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।