আমেরিকায় যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা জারির পথে বাইডেন

jo bide

ক্ষমতায় এসেই করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে প্রত্যাশিতভাবে পূর্বসূরি ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেখানো পথ থেকে অনেকটাই সরে এসেছেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। প্রথমে মাস্ক পরা এবং সামাজিক দূরত্বের নীতি বাধ্যতামূলক করেছিলেন বাইডেন।

এবার আমেরিকানরা ছাড়াও ব্রিটেন, ব্রাজিল, আয়ারল্যান্ড এবং ইউরোপের ২৬টি দেশের নাগরিকদের সীমান্ত পেরিয়ে আমেরিকা আসার ওপর পুনরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চলেছেন তিনি। রবিবার হোয়াইট হাউসের এক সিনিয়র কর্মকর্তা এমন তথ্যই জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাসের নতুন রূপ ব্রিটেন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দেশে সম্প্রতি থাবা বসিয়েছে। সেই সব দেশ থেকে যারা দেশে ফিরতে চান, তাদের প্রত্যাবর্তনের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি হতে চলেছে।

হোয়াইট হাউস সূত্রে খবর, গত সপ্তাহেই বাইডেন বলেছেন, সম্প্রতি যেসব আমেরিকানরা দেশটিতে এসেছেন, তাদের বাধ্যতামূলকভাবে নিভৃতবাসে পাঠানো হবে। সেই সঙ্গে মাস্ক পরা এবং সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলার ওপরও জোর দেন তিনি।

ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই বাইডেন এবং তার সহযোগী কমলা হ্যারিস দেশে করোনা ঠেকাতে একাধিক বার্তা দিয়েছেন। বর্তমানে সেভাবেই পদক্ষেপ নিচ্ছেন তারা।

গত বৃহস্পতিবার বাইডেন বলেছেন, ‘আমরা এখন জরুরি অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। আমাদের পরিস্থিতির সঙ্গে সেভাবেই মোকাবিলা করতে হবে।’

নিজের শেষ কাজের দিন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, ইউরোপের বেশির ভাগ দেশ এবং ব্রাজিল থেকে যাতায়াতের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওযা হলো। তখনই বাইডেন বলেছিলেন, ক্ষমতায় এসেই তিনি এই সিদ্ধান্ত বদলাবেন। সেই মতোই পদক্ষেপ নিচ্ছেন বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসন।