জনগণের আত্মত্যাগের ‘পুরস্কার’? হিজাব নিষিদ্ধ ও মসজিদ বন্ধ আজারবাইজানে!

azerbaijan

আর্মেনিয়ার সঙ্গে নাগোরনো-কারাবাখ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ৪৪ দিনের যুদ্ধে আজারবাইজানের জনগণও সরকারের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করেছে এবং ওই যুদ্ধে বিজয়ী হয় আজারবাইজান। দেশটির ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা এই বিজয়ের পর ভেবেছিলেন তাদের মসজিদগুলো খুলে দেয়া হবে এবং তারা স্বাধীনভাবে ধর্ম প্রচারের কাজ করতে পারবেন।

কিন্তু তাদের সে প্রত্যাশা পূরণ হয়নি আজো। এমনকি পবিত্র রমজান মাসে নারীদের হিজাব পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আজারবাইজান। এই ঘটনায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে মুসলিমদের মধ্যে। তাই অনেকের কাছেই প্রশ্ন সরকার তাহলে এভাবেই জনগণের আত্মত্যাগের ‘পুরস্কার’ দিল!

আজারবাইজানের জনগণ এবার এমন সময় রোজা পালন করছে যখন বিগত বছরগুলোর মতো এ বছরও সেদেশের সরকার মসজিদগুলো বন্ধ রেখেছে এবং ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ওপর বিভিন্ন ক্ষেত্রে চাপ ও বিধিনিষেধ অব্যাহত রেখেছে।
এ ব্যাপারে রুশ বিশেষজ্ঞ সের্গেই জেন্ট মার্কুস বলেছেন, আজারবাইজান হচ্ছে একটি মুসলিম রাষ্ট্র তাই সেখানে হিজাব নিষিদ্ধ করা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক। এ ধরণের পদক্ষেপে এর চেয়ে খারাপ আর কিছু হতে পারে না। আজারবাইজানের জনগণের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে হিজাব নিষিদ্ধ করে সরকারের নেয়া পদক্ষেপ সেদেশের সংবিধানেরও লঙ্ঘন।

সূত্র : পার্সটুডে।