বাসদের ১৬ নেতা বহিষ্কারের প্রতিবাদে যশোর জেলা কমিটি বিবৃতি

basod

কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির একাংশ কর্তৃক কমিটির অন্যতম সদস্য কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্তীকে শোকজ এবং ১৬ নেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী) যশোর জেলা কমিটি।

বাসদ (মার্কসবাদী) যশোর জেলা কমিটি সদস্য কিশোর অধিকারী, রিপন আহম্মেদ গাজী, জেলা বর্ধিত ফোরামের সদস্য উজ্জ্বল বিশ্বাস, ইমরান খান এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেছেন, গত ১৬ই ফেব্রুয়ারী কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির একাংশ কমিটির সদস্য কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্তীকে শোকজ এবং কেন্দ্রীয় নির্ধারিত ফোরামের ১৬জন নেতার যে বহিষ্কারাদেশ দেয়া হয়েছে, আমরা তার তীব্র নিন্দা জানাই এবং এ বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাখ্যান করে সারাদেশের কর্মী-সমর্থক-শুভানুধ্যায়ীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।
বর্তমান কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে অতীত দিনের ভুলের পর্যালোচনা ও মূল্যায়নের ভিত্তিতে নতুন পার্টি প্রক্রিয়া শুরু করার যে আহ্বান এ ১৬জন নেতা জানিয়েছিলেন, তা অত্যন্ত যৌক্তিক। কিন্তু কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটি এ মতামতকে দলবিরোধী তৎপরতা হিসেবে চিহ্নিত করে এবং দলের অভ্যন্তরে মতাদর্শিক সংগ্রাম পরিচালনার সকল পথ বন্ধ করে স্বৈরতান্ত্রিকভাবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘আজ যখন শ্রমজীবী-সাধারণ মানুষ তীব্র শোষণ-লুটপাটে জর্জরিত, তাদের পাশে দাঁড়িয়ে সংগ্রাম গড়ে তুলতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি। এসব ব্যর্থতার মূল্যায়ন না করে দলের অভ্যন্তরে নেতৃত্বের একক ও গোষ্ঠীগত সিদ্ধান্তমাফিক দল পরিচালনা, ঘোষিত নীতির পরিপূরক কর্মকাণ্ড ও কর্মসূচী নির্ধারণ না করা, ভিন্নমতকে কোণঠাসা করা, অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা না নেয়া, সর্বশেষ কথিত শৃংখলাভঙ্গের অভিযোগে অব্যাহতি, বহিষ্কারের পথেই কয়েক বছর ধরে নেতৃত্বের একাংশ দল পরিচালনা করেছেন। এসব প্রেক্ষিতে ১৬জন নেতা অতীতের ভুলের পর্যালোচনা করে তাদের মতামত তুলে ধরেছিলেন।
আমরা নতুনভাবে পর্যালোচনার ভিত্তিতে নতুন কর্মপন্থা হাজির করার প্রচেষ্টায় যুক্ত হবার জন্য সারাদেশের কর্মী-সমর্থক-শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আহ্বান জানাই।