মোড়ে মোড়ে পুলিশের চেকপোস্ট, অনেক সড়কে রিকশাও বন্ধ

lockdown

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে বাংলাদেশে নতুন করে বুধবার ভোর থেকে চলাচলে কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর হয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের জেলা শহর ও গুরুত্বপূর্ণ সব সড়কের মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। এ ছাড়া রয়েছে পুলিশের ভ্রাম্যমাণ টহল।

কিছু কিছু সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে সব যানবাহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রিকশাও চলতে দেওয়া হচ্ছে না সেসব সড়কে। এসব সড়কে জরুরি সেবা সংস্থার কোনো যানবাহনও যেতে পারছে না, যেতে হচ্ছে বিকল্প পথে।

বুধবার ভোর সাড়ে ৬টায় দেখা গেছে, শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়েছে। এসব চেকপোস্টে গাড়ি থামিয়ে লোকজনের মুভমেন্ট পাস দেখা হচ্ছে এবং রাস্তায় বের হওয়ার কারণ জানতে চাওয়া হচ্ছে।

জরুরি সেবার সঙ্গে জড়িত পেশাদার লোকজনকে চেকপোস্ট অতিক্রম করার অনুমতি দিয়ে অন্যদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

রাজধানী ছাড়াও চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, সিলেট, মৌলভীবাজার, রাজশাহী, বগুড়া, খুলনা, কুষ্টিয়া, বরিশাল ও পটুয়াখালীসহ অনেক জেলা শহরগুলোতেও এদিন সকালে একই অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

এর আগে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম বিধিনিষেধ দেওয়া হয়। পরে আরও দুদিন বাড়িয়ে ১৪ এপ্রিল ভোর পর্যন্ত চলমান করা হয়।

গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে বলা হয়, এ সময়ের মধ্যে সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা থাকবে শিল্প-কারখানা।

শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যপরিবহন চলবে। দুরপাল্লার বাসসহ বন্ধ থাকবে সব ধরনের গণপরিবহণ।

প্রথমে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ ব্যাংক বন্ধের কথা বলা হলেও গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, সীমিত আকারে বেলা ১টা পর্যন্ত চালু থাকবে ব্যাংক লেনদেন।