নতুন ফিচার আনছে ভাইবার

app

অ্যানিম্যাল মাস্ক ও ভাইবার ক্যারেক্টার, আন্ডারওয়াটার লেন্স, সিলি ক্যাট ইন্টার‌্যাকশন-সহ ৩০টি নতুন অগমেন্টেড রিয়েলিটি লেন্সের সুবিধা উপভোগ করার সুবিধা যোগ করছে ম্যাসেজিং এবং ভয়েস-ভিত্তিক কমিউনিকেশন অ্যাপ্লিকেশন ভাইবার।

স্ন্যাপের সাথে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে ক্যামেরা কিট, ক্রিয়েটিভ কিট এবং বিটমোজি’র মত ডেভেলপার টুলগুলোর সাহায্যে ভাইবারের অ্যাপটি এআর লেন্সকে সমন্বিত করবে। একইসাথে কাস্টমাইজেবল বিটমোজি অ্যাভাটারও নিয়ে আসার পাশাপাশি স্ন্যাপচ্যাটে শেয়ার করার সুবিধা দেবে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রথমবার ৩০টি লেন্স আনলেও প্রতিষ্ঠানটির পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিমাসে ৫০ থেকে ৭০টি অতিরিক্ত লেন্স নিয়ে আসার, যার ফলে এ বছরের শেষে অন্তত ৩শ’টি লেন্স নিয়ে আসবে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর সুযোগ থাকবে ভাইবারের নিজেদের লেন্স তৈরি করার।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফেডারেশন, এফসি বার্সেলোনা এবং ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন মতো প্রতিষ্ঠানসমূহ মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন নিজেদের লেন্স চালু নিয়ে আসবে। কাস্টোমাইজ এ লেন্সগুলো ব্যবহারকারীকে ভাইবার প্ল্যাটফর্মে তাদের পছন্দের ব্র্যান্ডগুলোর সাথে সম্পৃক্ততা বাড়াবে।

ভাইবারের এই নতুন লেন্সগুলোর সংযোজন অ্যাপ্লিকেশনটির ইতোমধ্যকার স্টিকার কালেকশনকে আরো উন্নত করে তুলবে, যা ব্যবহারকারীদের চ্যাটকেও করবে আরও আনন্দপূর্ণ। ভাইবারে ইনস্ট্যান্ট অগমেন্টেড রিয়েলিটি ফিচারের সাহায্যে ব্যবহারকারীরা তাদের পারিপার্শ্বিকতার ওপর ওভারল ইমেজ যুক্ত করতে পারবেন এবং আঙুলের সামান্য ছোঁয়াতেই এআর-এর ক্ষমতাকে উপভোগ করতে পারবেন।

অ্যাপ্লিকেশনের অসংখ্য মাস্কের মধ্য থেকে এক্সপ্রেসিভ মাস্ক ফিচারটির সাহায্যে এখন ব্যবহারকারীরা তাদের পছন্দের মাস্কটি বেছে নিতে পারবেন, যেটি তাদের মুখের সকল ভঙ্গিমা হুবহু নকল করতে সক্ষম। সেই সাথে, বিউটিফিকেশন ফিচারের মাধ্যমে ছবিতে লিপস্টিক, ব্ল্যাশ এবং চুলের বিভিন্ন রঙ যুক্ত করে ব্যবহারকারীরা নিজেদের ছবিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে পারবেন।

এর বাইরেও নতুন যুক্ত হওয়া ফিচারসমূহের মধ্যে রয়েছে নজরকাড়া বিভিন্ন ফিল্টার এবং কাস্টমাইজড বিটমোজি ফিচারের মাধ্যমে নিজের ইচ্ছে মত বিটমোজি ক্যারেক্টার যোগ করা যাবে ছবি ও ভিডিওতে।

স্পন্সরড এবং ব্র্যান্ডেড লেন্সের এই সংযোজন ভাইবারের জন্য নতুন আয়ের সুযোগও তৈরি করবে, কেননা অংশীদার প্রতিষ্ঠানগুলো এখন ব্যবসায়িকভাবে ভাইবারের সাথে যুক্ত হয়ে তাদের কমিউনিটি প্ল্যাটফর্মগুলোতে নিজেদের কাস্টম লেন্স তৈরি ও ব্যবহার করতে পারবে।

এ প্রসঙ্গে স্ন্যাপ ইনকর্পোরেটেড ক্যামেরা প্ল্যাটফর্ম পার্টনারশিপ ডিরেক্টর এলিয়ট সলোমন মন্তব্য করেন, রাকুতেন ভাইবারের সাথে স্ন্যাপের এই অংশীদারিত্ব উভয় প্রতিষ্ঠানের জন্যই লাভজনক হতে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই ভাইবার যেসব অঞ্চলের গ্রাহকদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, তাদের কাছে আমরা এখন আমাদের অগমেন্টেড রিয়েলিটি প্রযুক্তি পরিসীমা বিস্তৃত করতে পারছি এবং ভাইবার ব্যবহারকারীদের এআর প্রযুক্তির মাধ্যমে নিজেকে আকর্ষণীয় রূপে প্রকাশের সুযোগ তৈরি করছি।

ভাইবারের সিইও জামেল অ্যাগাউয়া বলেন, ব্যবহারকারীদের হাতে স্ন্যাপ ক্যামেরা পৌঁছে দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। এই অংশীদারিত্বের মাধ্যমে আমরা ব্যবহারকারীদের হাতে এআর-এর দূর্দান্ত ক্ষমতা তুলে দিতে চাই এবং বন্ধুবান্ধব ও স্বজনদের সাথে যোগাযোগের হাসি-ঠাট্টায় এক নতুন মাত্রা যুক্ত করতে চাই।

ভাইবার কেবলমাত্র একটি ম্যাসেজিং অ্যাপ হিসেবেই সীমাবদ্ধ নয়। এটি কেবল একের সাথে অন্যকে যুক্তই করে না, বরং এটি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে আনন্দ-বিনোদনময় ও ফলপ্রসু কন্টেন্টের আদান-প্রদানের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা নিজস্ব কমিউনিটিতে সরব থাকেন।

নতুন সব ফিচারসহ অ্যাপ্লিকেশনটির আইওএস সংস্করণ এবং ইংরেজি ভাষায় অ্যান্ড্রয়েড বেটা সংস্করণ চলতি বছরের ৩০ জুন থেকে পাওয়া যাচ্ছে ভাইবারের কার্যপরিসীমার আওতাধীন অধিকাংশ দেশে।