ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌরসভা নির্বাচন এবারও খাঁনে খাঁনে লড়াই

Jhenaidah Moheshpur Pouro Election

দেশের সীমান্তবর্তী পৌরসভা ঝিনাইদহের মহেশপুর। আগামি ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে এ পৌরসভার নির্বাচন। নির্বাচনের দিন যতই এগিয়ে আসছে প্রার্থীদের পদচারানায় মুখরিত হয়ে উঠছে পৌর এলাকার অলি-গলি, দোকান-পাট আর চায়ের দোকান।

ঝিনাইদহ জেলা শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে ভারতীয় সীমান্তে কোল ঘেষে অবস্থিত এ পৌরসভাটির যাত্রা শুরু হয় ১৮৬৯ সালে। মহেশপুর হলো বাংলাদেশে স্থাপিত দ্বিতীয় পৌরসভা। সে সময় এই পৌরসভাকে টাউন কমিটি নামকরণ করা হয়। প্রথম ইংরেজ মেয়র পিবি মার্টিনের হাত ধরে শুরু হয় ঐতিহ্যবাহি এ পৌরসভা বা টাউন কমিটির কার্যক্রম। ঐতিহ্যবাহি প্রাচীন এ পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রথম শ্রেণির নাগরিক সেবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা।

এখানে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন চারজন। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র আব্দুর রশিদ খাঁন, বিএনপি মনোনিত ধানের শীষ প্রতিকের আমিরুল ইসলাম খাঁন চুন্নু, হাতপাখা প্রতিক নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের তাহাবুর রহমান খান এবং নারিকেল গাছ প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাংবাদিক গোলাম মোস্তফা কিরণ।

পৌরসভায় মোট ভোটার ২৪৪৫৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১১১০৫ জন ও মহিলা ১১৩৪ জন। নয়টি ওয়ার্ডে ১১টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাচন অফিসার সেলিম রেজা।

ভোটের মাঠে চারজন মেয়র প্রার্থী থাকলেও ভোটাররা বলছেন মূল লড়াই হবে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র আব্দুর রশিদ খাঁন ও বিএনপি মনোনিত ধানের শীষ প্রতিকের আমিরুল ইসলাম খাঁন চুন্নুর মধ্যে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী আব্দুর রশিদ খাঁন মেয়র নির্বাচিত হন।

আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী আব্দুর রশিদ খাঁন জানান, গত পাঁচ বছরের পৌরবাসির প্রথম শ্রেণির নাগরিক সেবা দিতে দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছি। ফলে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পৌরবাসি এবারও আমাকে ভোট দেবেন। আসন্ন নির্বাচন নিয়ে মহেশপুর পৌর ল্যাব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এটিএম খাইরুল এনাম কোন ধরনের মন্তব্য করা সম্ভব নয় জানিয়ে বলেন, দেড়শত বছরের পুরানো এই পৌরসভাটির মানুষ ভালো থাক। তবে নির্বাচনে জনগন যাকে বেছে নেবে সে যেন প্রথম শ্রেণির নাগরিক সেবা দেওয়ার চেষ্টা করেন এটাই প্রত্যাশা পৌরবাসির।